অবশেষে দ্রুতগতির ইন্টারনেট পেল রোহিঙ্গারা

ক্যাম্প সংবাদদাতা, রোহিঙ্গা টিভি: 

রোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ইন্টারনেট সেবা চালু করতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা, সংগঠন ও রোহিঙ্গা ভিত্তিক সংগঠনগুলো আহ্বান জানিয়েছিল। সংবাদ সংগ্রহে অসুবিধার সম্মুখিন হওয়ায় স্থানীয় সাংবাদিকদের দাবিও ছিল রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দ্রুত গতির ইন্টারনেট সেবা চালু করা। কিন্তু  সরকারের তরফ থেকে গ্রিন সিগন্যাল না পাওয়ায় মোবাইল অপারেটর কোম্পানীগুলো ইন্টারনেট সেবা পুরোদমে চালু করতে না পারলেও, অবশেষে ২৮ আগস্ট ভোর থেকে ৩জি ও ৪জি গতির ইন্টারনেট পাচ্ছে রোহিঙ্গারা।

বাংলাদেশের টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি রবি আজিয়াটার চিফ করপোরেট অফিসার শহীদ আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা আজ সকাল থেকে টেকনাফ ও উখিয়া এলাকায় পুনরায় থ্রিজি ও ফোরজি নেটওয়ার্ক চালু করেছি।’

টেকনাফ ও উখিয়া এলাকায় পুনরায় থ্রিজি ও ফোরজি নেটওয়ার্ক চালুর সিদ্ধান্তের বিষয়টি জানিয়ে গত ২৬ আগস্ট ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয় বিটিআরসি।

এদিকে রোহিঙ্গারা দ্রুতগতির ইন্টারনেট পেয়ে আনন্দিত। দেশ-বিদেশে থাকা স্বজনদের সাথে কথা বলা, শিক্ষা ও চিকিৎসা বিষয়ে সচেতন হওয়া ও ক্যাম্প ভিত্তিক প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে দ্রুতগতির ইন্টারনেট।

কুতুপালং ডি ফাইভ ক্যাম্পের রোহিঙ্গা আব্দুল্লাহ জানান, সকাল থেকে রবির হাই স্পিড ইন্টারনেট পাওয়া যাচ্ছে ক্যাম্প এলাকায়। অন্যদিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পার্শ্ববর্তী স্থানীয় গ্রামবাসীরাও দ্রুতগতির ইন্টারনেট পেয়ে উচ্ছ্বসিত।

Comments are closed.